গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না। কিভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন

বর্তমান সময়ে গরমের এতো তীব্রতা বাড়ছে যে গরমে জনজীবন হুমকির পথে। বৈশাখ মাস থেকে বৃষ্টি ও ঝড়ের কথা হলেও এখন হচ্ছে সেটার উল্টা। গরমের সময় নানারকম সমস্যা দেখা দিতে পারে তাই আমাদের উক্ত সমস্যা এবং সমস্যার পূর্বপরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে হবে। আজকের আর্টিকেলে আমরা জানবো যে, গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না এবং এতো গরমে কীভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন সে সম্পর্কে।
এই তীব্র গরমে আর রোদের কড়া তাপে জিবিকার উদ্দেশ্যে বের হতে হয় সবাইকে কিন্তু গরমে হিট স্ট্রোক, ডায়রিয়া, জ্বর, কাশিরসহ আরও নানারকম জটিল সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তাই এই গরমে আমাদের সচেতন হতে হবে। সচেতন হলে গরমে অনেকটা সমস্যা থেকে বাঁচা সম্ভব।

ভূমিকা

গরমে জনজীবন অতিষ্ঠ। সূর্য্যি মামা তাপপ্রবাহ এতো বৃদ্ধি করেছে যে সূর্যের নিচে ৫ মিনিট দাড়িয়ে থাকা একটি চ্যালেঞ্জস্বরূপ। সূর্য্যি মামার পর আবার বৃষ্টির সমস্যা। দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ার কারণে তাপমাত্রা আরও বেশি হয়েছে। এই গরমে কিছু কিছু টেকনিক অবলম্বন না করে চললে নানারকম সমস্যা হতে পারে এমনকি মৃত্যু হচ্ছে অনেকের।

তাই আমাদের গরম থেকে নিজেকে এবং নিজের পরিবারকে সুরক্ষিত রাখতে হলে কি কি করা লাগবে, কি কি খাওয়া লাগবে এগুলো বিষয় নিয়ে আজকে আপনাদের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করবো। আজকের পোস্টের আমাদের আলোচনার বিষয় হচ্ছে গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না। কিভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

গরমে যে কয়টি কাজ ভুলেও করবেন না

অতিরিক্ত গরমে মানুষ কিছু কিছু ভুল করে থাকে যার কারণে আবহাওয়া গমমের পাশাপাশি শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায়। যার কারণে এমনিতেই গরম তার ওপর শরীরে আরও বেশি গরম অনুভূতি হয়। তাই এই গরমে আমাদের প্রথমত দুইটা অভ্যাসের পরিবর্তন করতে হবে।

  • খাবারের অভ্যাস
  • চলাচলের অভ্যাস
  • জীবনযাপন
এখন আমরা নিচে এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। আজকের পোস্টে আমাদের মূল আলোচনার বিষয় হচ্ছে গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না। কিভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন কীভাবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

গরমে সেসব খাবার কম খাওয়া উচিত

কিছু কিছু খাবার আছে যেগুলো এই গরমে খেলে শরীরের তাপমাত্রা আরও বেশি হয়ে যায়। এই তীব্র গরমে আমাদের উক্ত খাবারগুলো কম খাওয়া অথবা একবারে পরিহার কড়া উচিত। নিচে উক্ত খাবারগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হল।

অধিক মসলাজাতীয় খাবার
আমরা সবাই অধিক মসলাজাতীয় খাবার খেতে পছন্দ করি। কারণ অধিক মসলাজাতীয় খাবার অনেক সুস্বাদু এবং মুখরুচক হয়। কিন্তু অধিক গরমে মশলাযুক্ত খাবার খাওয়া উচিত নয়। অধিক মসলাজাতীয় খাবার হজম হতে দেরি হয় যার কারণে পেটের মধ্যে আরও বেশি গরম অনুভূতি হয়। তাছাড়া অধিক মসলায় প্রচুর গ্যাস সৃষ্টি করে থাকে যা আমাদের গরম এবং শরীরের চাপ বাড়াতে পারে অতঃপর আরও বেশি গরম অনুভূতি হবে।

আইসক্রিম ও কোমল পানীয়
অনেকেই মনে করে আইসক্রিম ও কোমল পানীয় গরমে অনেক উপকারী। কিন্তু এমনটা নয়। আপনি বাইরে থেকে আসলে আপনার অনেক ইচ্ছে হবে আইসক্রিম ও কোমল পানীয় খেতে। এই গরমে আইসক্রিম ও কোমল পানীয় আপনার শরীরে ক্ষণিকের জন্য ঠাণ্ডা অনুভূতি দিতে পারে কিন্তু খাওয়ার পর আপনার শরীর আরও বেশি গরম হয়ে যাবে। তাছারাও আইসক্রিম ও কোমল পানীয় খাওয়ার ফলে পানিশূন্যতায় ভুগতে পারেন। তীব্র গরমে ফ্রীজ থেকে আইসক্রিম ও কোমল পানীয় পান করলে আপনার শ্বাসকষ্টের মত মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। তাই অতিরিক্ত গরমে আইসক্রিম ও কোমল পানীয় পান করার আগে ভাববেন।

ডিম
ডিম অনেক গরম একটি খাবার। ডিম একটি উচ্চ প্রোটিনযুক্ত খাবার। ডিম আমাদের শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি এবং উচ্চ রক্তচাপ বাড়াতে সাহায্য করে কিন্তু অধিক গরমে ডিম খেলে রক্তের চাপ আরও বেড়ে যেতে পারে। তাই গরমে ডিম পরিহার করায় শ্রেয়।

দুদ্ধজাতীয় খাবার
দুধ একটি সুষম খাদ্য। অতিরিক্ত গরমে দুধ তাড়াতাড়ি ব্যাকটেরিয়া যুক্ত হতে পারে । আর ব্যাকটেরিয়াযুক্ত দুধ সেবন করলে ডাইরিয়া হতে পারে। আবার দুধ অনেক গরম একটি পানীয়। গরমে দুধ পান করলে আরও গরম বেশি লাগতে পারে তাই অধিক গরমে দুধ না খাওয়াই ভাল।

ফাস্টফুড
ফাস্টফুড বলতে বার্গার, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, ফ্রায়েড চিকেন, পিৎজা ইত্যাদি খাবারকে বুঝায়। ফাস্টফুড খাওয়া যেকোনো সময়ই ক্ষতিকর আর গরমকালে তো একেবারেই মানা। এই খাবারের অতিরিক্ত তেল ও চর্বি থাকায় হজমে অনেক সময় লাগে। তার সাথে সাথে রক্তচাপ বেড়ে যাই যার জন শরীরে গরম এবং অস্বস্তি লাগে। আজকের পোস্টে থেকে আমরা জানছি গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না। কিভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন।

চা-কফি
শীতকালে মানুষ চা-কফি বেশি পান করে নিজের শরীর গরম করার জন্য তাহলে গরমে অবশ্যই চা-কফি বর্জন করা উচিত। তাছাড়া চা-কফি অনেক গরম হয় সেটা শরীরের জন্য হুমকির কারণ হতে পারে।

তেল- চর্বি খাওয়া
অধিক তেল- চর্বি জাতীয় খাবার যেমন মাংস, খাসীর মাংস, হাঁসের মাংস, এগুলোতে প্রচুর তেল ও চর্বি থাকে গরমে এগুলো খাবার কম খাওয়া উচিত। আবার এগুলো দিয়ে খাবার যেমন বিরিয়ানি, পোলাও, কাচ্চি, তেহেরি এগুলো খাওয়া বন্ধ করতে হবে তীব্র গরমে।

স্টেক
রেস্টুরেন্টে যাবে আর স্টেক খাবেনা এইরকম মানুষ কিন্তু নাই। কিন্তু অতিরিক্ত গরম থেকে বাঁচতে আপনাকে স্টেক খাওয়া পরিহার করতে হবে।

তেলে ভাজা খাবার
আমরা অনেকই আছি যারা তেলে ভাজা ভাজাপরা খেতে অনেক পছন্দ করি। প্রথমত এগুলো আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতিকর তার ওপর অধিক গরমে এগুলো খাওয়া একেবারেই উচিত নয়। গরমে এগুলো খাবার আমাদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে আমাদের পেট খারাপ করতে পারে। ডাইরিয়ার মত খারাপ রোগ হতে পারে।

চিনি ও লবণ
লবণ উচ্চ রক্তচাপের জন্য দায়ী একটি খাবার তাই গরমে বেশি লবণ খাওয়া উচিত নয়। চিনিও অনেক গরম একটি খাবার তাই অধিক গরম থেকে বাঁচতে আমাদের চিনি খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।
অধিক গরম থেকে নিজের শরীরকে বাঁচাতে আমাদের উপরিক্ত খাবারগুলো কম খাওয়া অথবা একেবারে পরিহার করা উচিত। আজ আমরা জানলাম গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না। 

কীভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন

গরম থেকে নিজের শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে হলে ঠাণ্ডা নিরাপদ জাইগায় থাকতে হবে। অতিরিক্ত প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে বের হওয়া যাবেনা। যদিও বাসা থেকে বের হন তাহলে একটা ছাতা এবং একটি স্যলাইনযুক্ত পানির বোতল নিয়ে বের হতে হবে। বাসাই আসার পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে গোসল করে নিতে হবে। আর কিছু কিছু ঠাণ্ডা খাবার গ্রহণ করতে হবে।

গরম থেকে বাঁচতে যে খাবারগুলো খাবেন

গরম থেকে বাচার কোন উপায় নাই তবে কিছু কিছু উপায় এবং খাব্র খেলে এই তীব্র গরমে শরীর ঠাণ্ডা রাখা যায়।

পানি
পানির ওপর নাম জীবন। সুতরাং বোঝায় যাচ্ছে আমাদের জন্য পানি কতটা জরুরী। অতিরিক্ত গরমে বেশি বেশি ঠাণ্ডা পানি পান করুন। পানি আপনার শরীরকে সুস্থ এবং ঠাণ্ডা রোগমুক্ত রাখবে। পানি আমাদের শরীর থেকে ঘামের মধ্য দিয়ে জীবাণু বের করে দেয়। তাই গরম থেকে বাঁচতে প্রচুর পানি পান করতে হবে।

সবজি
শাকসবজি অনেক ঠাণ্ডা খাবার। এগুলো তাড়াতাড়ি হজম হয় যার কারণে শরীরে গরম এবং অস্বস্তি কম লাগে। তাই অতিরিক্ত গরমে মাছ, মাংস, ডিম এগুলো বাদে সবজি খাওয়া উত্তম।

মৌসুমি ফল
গরমের সময় কিছু কিছু ঠাণ্ডা ফল পাওয়া যায় এগুলো খেলে শরীর ঠাণ্ডা হয়। উক্ত ফলগুলোর মধ্যে রয়েছে তরমুজ, বাঙ্গি ইত্যাদি। এগুলো খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ভালো।

আখের রস
আখের রস আমাদের জন্য খুব উপকারী একটি পানীয়। আখের রসে অনেক পুষ্টি উপাদান থাকে। বিশেষ করে ডায়াবেটিক রোগী এবং জন্ডিস রোগীর জন্য আখের রস অনেক উপকারী।

বেলের শরবত
বেল অত্যান্ত সুস্বাদু একটি ফল। বেলের অনেক ওষুধি গুণ রয়েছে। বেল শরবত করে এবং এমনি খাওয়া যায়। বেলের শরবত শরীরের হজমশক্তি বৃদ্ধি করে। এক গ্লাস বেলের শরবত আপনার পেট ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করবে।

জিরা পানি
জিরা পানি খাবার হজম করতে এবং গ্যাস্ট্রিক সমস্যার সমাধান দেয় তাই নিয়মিত জিরা পানি খাওয়া উচিত।

আমরা ইতিমধ্যে জেনে গেছি যে অধিক গরমে কোন খাবার খাওয়া উচিত এবং কোন খাবার খাওয়া উচিত নয়। আজকের পোস্ট থেকে আমরা জেনেছি গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না। কিভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখবেন সে বিষয়ে।

অধিক গরমে কি কি রোগ হতে পারে ?

গরমে নানারকম রোগ হয় তবে অধিক গরম লাগলে আমাদের শরীরের পানিশূন্যতা, ডায়রিয়া, পেতে সমস্যা, প্রসাবে জ্বালাপড়া হয়। তাছাড়া জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্টের রোগ, নিউমোনিয়া, পানিবাহিত রোগ, টাইফয়েড, জন্ডিস ও চর্মরোগ হতে পারে। এই রোগ থেকে বাঁচতে আমাদের উপরিক্ত খাদ্যভ্যাসের পরিবর্তনসহ কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে। গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না সে সম্পর্কে জানতে হবে।


মন্তব্য

সবমিলিয়ে বলা যায় গরম থেকে নিজের শরীরকে রক্ষা করতে এবং গরমের বিভিন্ন রোগ থেকে বাচার জন্য আমাদের খাদ্যভ্যাস এবং দৈনন্দিন জীবনের কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে। তাহলে গরম থেকে একটু হলেও বাঁচা যাবে। অতঃপর গরমে আপনার বাড়ির ছোট শিশুদের খেয়াল রাখবেন।

আজকের পোস্ট থেকে আমরা গরমে যে কয়টি কাজ ভূলেও করবেন না এবং কীভাবে শরীর ঠাণ্ডা রাখা যায় সেই বিষয়ে বিস্তারিত জেনেছি। পোষটি এই গরমে আপনাকে ঠাণ্ডা রাখার কাজে সাহায্য করবে। নিকট কোন বন্ধুর সাথে পোস্টটি শেয়ার করে তাদের এই গরমে শরীর ঠাণ্ডা করার উপায় সম্পর্কে জানতে সাহায্য করুন। পোস্টটি ভালো লাগলে একটি লাইক দিয়ে পেজটি ফলো করুন। নতুন নতুন পোস্ট পড়তে পেজটি ভিজিট করুন। আমরা আপনাদের জন্য শিক্ষণীয় ও প্রয়োজনীয় আর্টিকেল সংগ্রহ করে থাকি।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url